হিলিয়াম, নিয়ন, আর্গন কেন নিস্ক্রিয় ?

0
7725

                   

                                                        

বন্ধুরা, হিলিয়াম,নিয়ন ও আর্গন গ্যাস নিষ্ক্রিয় হওয়ার কারণ এরা সাধারণত কোন মৌলের সাথে বিক্রিয়া করে না ও যৌগ গঠন করে না। চলো আমরা নিচের টেবিলটা একটু খেয়াল করে দেখি তাহলে নিষ্ক্রিয় গ্যাস(Inert gas) সম্পর্কে আমারা আরেকটি মজার ধারণা পাব।

        মৌলের নাম

    পারমাণবিক সংখ্যা

 ( Atomic  Number)

        ইলেকট্রন বিন্যাস

 (Electronic Configuration)

 শেষ কক্ষপথে ইলেকট্রন সংখ্যা

 হিলিয়াম ( He)

 নিয়ন ( Ne)

১০

২,৮

 আর্গন ( Ar)

১৮

২,৮,৮

দেখো, মজার বিষয়টা হচ্ছে, হিলিয়ামের কক্ষপথে দুইটি ও নিয়ন,আর্গন ও অন্যান্য নিষ্ক্রিয় গ্যাসের শেষ কক্ষপথে আটটি ইলেকট্রন আছে। অর্থাৎ এদের ইলেকট্রন বিন্যাস অত্যন্ত স্থিতিশীল। এই স্থিতিশীল অবস্থার কারণে এরা কোনো ইলেকট্রন গ্রহণ বা বর্জন করতে পারে না। তাই হিলিয়াম,নিয়ন ও আর্গন গ্যাস নিষ্ক্রিয় থাকে। 

নিস্ক্রিয় গ্যাসের ব্যবহারঃ

হিলিয়াম ( He)

(১) বেলুন ও আকাশ যানে হিলিয়াম ব্যবহৃত হয়। এটি হাইড্রোজেন অপেক্ষা ভারী হলেও এর উত্তোলন ক্ষমতা হাইড্রোজেনের প্রায় কাছাকাছি (৯২%) অথচ এটি আদাহ্য ও অপেক্ষাকৃত কম ব্যাপনীয় (less diffusible)। এজন্য এ কাজে হাইড্রোজেন অপেক্ষা হিলিয়াম অধিক উপযোগী।

(২) রক্তে হিলিয়াম অপেক্ষা নাইট্রোজেন অধিকতর দ্রবণীয়। এই জন্য ডুবুরী যন্ত্রে বায়ুর পরিবর্তে অক্সিজেনের সাথে মিশ্রিত অবস্থায় হিলিয়াম  ব্যবহৃত হয়। এতে সমুদ্রের তলদেশে উচ্চ চাপে বায়ুতে শ্বাস-প্রশ্বাসের যে অসুবিধা হয় তা দূরীভূত হয়। কারণ উচ্চ চাপে বায়ুতে নাইট্রোজেন রক্তে দ্রবীভূত হয়ে যায় আর পানির উপরে উঠা মাত্রই চাপ কমে যায়, ফলে দ্রবীভূত নাইট্রোজেন বের হয়ে আসে এবং রক্তের মধ্যে বুদ্বুদ্ সৃষ্টি করে। এতে অকস্মাৎ ব্যথা সৃষ্টি হয়। হিলিয়াম যুক্তি অক্সিজেন ব্যবহারে এই অসুবিধা হয় না।

(৩) হাঁপানী প্রভৃতি রোগে শ্বাসকার্যের সহায়তার জন্য হিলিয়াম মিশ্রিত অক্সিজেন ব্যবহৃত হয়।

(৪) নিম্ন তাপমাত্রার গবেষণাকার্যে তরল হিলিয়াম (স্ফুটনাঙ্ক ৪.১ K) ব্যবহৃত হয়।

(৫) নিম্ন তাপমাত্রা পরিমাপে ব্যবহৃত গ্যাস থার্মোমিটারে হিলিয়াম ব্যবহৃত হয়।

(৬) সহজেই জারিত হয় এমন ধাতু ও ধাতু সংকরের গলন এবং জোড়া লাগানোর সময় নিষ্ক্রিয় পরিবেশ সৃষ্টি করতে হিলিয়াম ব্যবহৃত হয়।

(৭) বায়ু অপেক্ষা হিলিয়াম হাল্কা বলে এটি বৃহদাকার আকাশ যানের টায়ারে ব্যবহৃত হয়।

(৮) এর সান্দ্রতা (viscosity ) একটু অধিক বলে কম্পাস ও নাবিকদের অন্যান্য যন্ত্রে এটি ড্যাম্পার (damper) হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

(৯) এটি বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার, টিউব লাইট ও রেডিও টিউবে ব্যবহৃত হয়।

(১০) মাটির নিচে পেট্রোলিয়াম স্থানান্তর নির্দেশনায় ট্রেসার (tracer) গ্যাস হিসেবে এটি ব্যবহৃত হয়।

নিয়ন ( Ne)

(১) নিয়ন প্রধানত আলোক উৎপাদন ও আলোকসজ্জায় ব্যবহৃত হয়। নিয়ন-টিউবে এটি অত্যুজ্জ্বল লাল আলো উৎপাদন করে। এটি পারদ (মারকারি) বাষ্পের সাথে মিশ্রিত থাকলে সবুজ বা নীল আলো পাওয়া যায়। নিয়ন গ্যাস বা তার বিভিন্ন মিশ্রণের সাথে বিভিন্ন বর্ণের কাচ ব্যবহার করে আলোর বৈচিত সৃষ্টি করা সম্ভব। নিয়ন আলো কুয়াসার মধ্যেও দেখা যায় -এই জন্য বৈমানিকগণ আলোক-সংকেতরূপে এই আলো ব্যবহার করে থাকেন।

(২) নিয়নের সাহায্যে প্রতিপ্রভ নলে আলোর বৈচিত্র্য সৃষ্টি করে ব্যবসায় ক্ষেত্রে রকমারি বিজ্ঞাপনে নিয়ন যথেষ্ট পরিমাণে ব্যবহৃত হয়।

(৩) কোন নিদিষ্ট বিভব সীমা (voltage limit) অতিক্রান্ত না হওয়া পর্যন্ত নিয়ন-হিলিয়াম মিশ্রণ বিদ্যুৎ পরিবহন করে না। এই মাত্রা অর্থাৎ উচ্চ বিভব প্রয়োগ হলে এটি বিদ্যুৎ পরিবাহী। কাজেই ভোল্টামিটার ও রেকইটফায়ার প্রভৃতি যন্ত্রের সংরক্ষণে এই মিশ্রণ ব্যবহৃত হয়।

আর্গন ( Ar)

(১) আর্গন প্রধানত ইলেকট্রিক বাল্ব পূরণে ব্যবহৃত হয়। বাল্বে আর্গন থাকার দরুন টাংস্টেন সূত্র (tungsten filament) সহজে বাষ্পীভূত হয় না ফলে বালবের পরমায়ু অনেকাংশে বর্ধিত হয়।

(২) রেডিও-এর বাল্ব ও রেকটিফায়ার-এ আর্গন ব্যবহৃত হয়।

(৩) ঝালাই-এর কাজে নিষ্ক্রিয় পরিবেশ সৃষ্টি করতে আর্গন ব্যবহৃত হয়।

(৪) গ্যাস ক্লোমাটোগ্রাফীতেও এর ব্যবহার আছে।

ক্রিপটন ( Kr)

(১) আর্গনের মত ক্রিপটনও টিউব বাতিতে ব্যবহৃত হয়।

(২) কসমিক রশ্মি পরিমাপে আয়নীকরণ প্রকোষ্ঠে (Ionisation chamber) ক্রিপটন ব্যবহৃত হয়।

(৩) ক্রিপটন পারমাণবিক দীপ (Krypton atomic lamp) নির্মাণে Kr 85-এর ব্যবহার আছে।

(৪) খনি-শ্রমিকদের ‘ক্যাপ-ল্যাম্পে’ ক্রিপটন ব্যবহার করা হয়।

জেনন ( Xe)

(১) দ্রুত গতিসম্পন্ন ফ্লাশ-লাইটে জেনন আছে।

(২) নিউট্রন Y-রশ্মি ও নিরপেক্ষ মেসন (meson) শনাক্তকরণে বুদ্বুদ্ প্রকোষ্ট (Bubble chamber) তৈরি করতে এটি ব্যবহৃত হয়।

রেডন ( Rn)

(১) রেডিও-থ্যারাপি চিকিৎসায় শরীরে ক্ষতিকর বৃদ্ধি নাশে এটি ব্যবহৃত হয়।

(২) ক্যানসারের মত দুরারোগ্য ব্যাধি নিরসনেও রেডন ব্যবহৃত হয়।

 

এই ভিডিওতে ঝালাইয়ের কাজে নিষ্ক্রিয় গ্যাস ব্যবহার করা হচ্ছে

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে